থেমে গেল বিয়ের সানাই, বৌভাতের দিনেই বিষ গ্যাসে মৃত্যুবরণ করল বর

গত বৃহস্পতিবার যাদবপুরের বিদ্যাসাগর কলোনির ২৬ বছর বয়সী যুবক নীলাদ্রি চক্রবর্তী, অনিন্দিতা বোস এর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু তাদের দুজনের আর সংসার করা হলো না। ঠিক বৌভাতের দিন এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে গেল। অকালে মৃত্যুবরণ ঘটল নীলাদ্রির। (Jadavpur Tragic Death News : Bridegroom Niladri Chakraborty the husband of Anindita Bose passes away in the bou bhat due to poisonous CO Carbon Monoxide gas in Vidyasagar Colony, Jadavpur, Kolkata, West Bengal)

সূত্র অনুসারে জানা গেল, নিয়ম অনুসারে বউ বাড়ির অন্যান্য লোকজনের সাথে ছিলেন। অপরদিকে স্বামী নীলাদ্রি শুক্রবার অনেক রাত অবধি বন্ধুদের সাথে মদ্যপান করেছিলেন। তাছাড়া তিনি নাকি প্রচুর পরিমাণে স্মোক করতেন। এরপর ঘরে একা একা শুয়ে পড়েন তিনি। (Bhagyahina bou Anindita Bose)

পরদিন শনিবারে সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে বরের বাবা নিশিথ চক্রবর্তী লক্ষ্য করেন তার ছেলের ঘর ধোঁয়ায় পরিপূর্ণ। ফলে তার সন্দেহ হয় এবং তিনি ভিতরে ঢুকে দেখেন তার ছেলে বিছানার উপর অজ্ঞান হয়ে রয়েছে। এমনকি তার হাতে যে সিগারেট ছিল তার ধোয়াতে বালিশ পুড়ে গিয়েছে। তড়িঘড়ি নীলাদ্রি কে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং দুর্ভাগ্যবশত ডাক্তাররা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। (Nisth Chakraborty, the father of Niladri)

পরে ময়নাতদন্ত করার পর ওই যুবকের দেহ থেকে কার্বন মনোক্সাইড এর অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছে। বন্ধ ঘরে ধূমপান করায় ওই ঘর কার্বন-মনোক্সাইড নামক বিষাক্ত গ্যাসে পরিপূর্ণ হয়ে গিয়েছিল। ফলে এই বিষক্রিয়ায় ওই যুবকের মৃত্যু বরণ ঘটে অকালে। এরকমভাবে মৃত্যুর ঘটনা এর পূর্বে একবার শোনা গিয়েছিল।

তবে ঠিক বৌভাতের দিন এই মৃত্যুবরণের এই ঘটনায় বউয়ের জীবনের সমস্ত রং মুছে গিয়েছে। আর তার সাথে সাথে দুই বাড়ির লোকজন এবং পাড়া-প্রতিবেশীরা বোধ বুদ্ধি হারিয়ে ফেলেছেন।

প্রসঙ্গত, ছেলের বাবা নিশিথ চক্রবর্তী কলকাতা পুরসভার ৯৯ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূলের একজন সক্রিয় সদস্য। তিনি ওই এলাকার ওয়ার্ডের পূর্বে সভাপতি ছিলেন। আর তার একমাত্র ছেলের বিয়ে বলে কথা! তিনি বিশাল আয়োজন করেছিলেন।

আত্মীয়স্বজন এবং পাড়া-প্রতিবেশীদের নিমন্ত্রণ দেওয়া হয়েছিল। তবে মানুষ ভাবে এক আর হয় আরেক। তাদের দুই পরিবারের লোকজনের জীবন থেকে একমুহূর্তেই মুছে গেল সমস্ত আনন্দ। পাড়া-প্রতিবেশী সহ আত্মীয়-স্বজন প্রত্যেকে রায় সে দিন ধরে শুধু ঐ ব্যাপার নিয়েই কথাবার্তা বলছে।

পাড়া প্রতিবেশীর কাছ থেকে জানা গেল, সদ্য বিধবা নববধূকে নীলাদ্রির বাড়ির পক্ষ থেকে নিজেদের মেয়ের মত করে রাখবে। অপরদিকে, যুবক নীলাদ্রি একটি বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত অবস্থায় ছিলেন। অপরদিকে ওই তরুণী সঙ্গে তিন বছর ধরে তিনি প্রেম করছিলেন। আর তিনিও একটি প্রাইভেট সংস্থায় কাজ করেন।

এমনকি বিয়ের পর ওই যুবক সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করেছিলেন। তিনি লিখেছিলেন,”অপেক্ষার অবসান আমাদের চক্রবর্তী পরিবারে তোমাকে স্বাগতম।” আর এই পোস্ট করার কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই তাঁর মৃত্যুর মত মর্মান্তিক খবর পাওয়া গেল।

ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুসারে নীলাদ্রির ফুসফুস থেকে কার্বন-মনোক্সাইডের হদিস পাওয়া গিয়েছে। এমনকি ওই যুবক পেটের রোগ গ্যাস্ট্রিক আলসারের ভুগছিলেন। তার লিভার ও অনেকটা খারাপ হয়ে গিয়েছিল। তার বালিশে যে আগুন ধরে গিয়েছে তিনি আসলে বুঝতেই পারেননি। আর মুহূর্তের মধ্যেই বিষাক্ত গ্যাস তার জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে।

Bridegroom Niladri Chakraborty the husband of Anindita Bose passes away in the bou bhat
থেমে গেল বিয়ের সানাই, বৌভাতের দিনেই বিষ গ্যাসে মৃত্যুবরণ করল বর (ক্রেডিট : niladri.chakraborty.14 on Facebook)