2024 সালের মধ্যেই প্রথম চন্দ্র অভিযানে যেতে পারে নারী

আমেরিকান মহাকাশ সংস্থা নাসার তরফে আবার চাঁদে মানুষ নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে এই মিশনের ঘোষণা করেছে তারা। এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হতে সময় লাগবে ২০২৪ সাল পর্যন্ত। এই প্রকল্পে খরচ হবে ২ হাজার ৮০০ কোটি ডলার। এই মিশনে প্রথম বারের জন্য একজন নারী পদার্পন করবেন চাঁদের মাটিতে (365 Reporter Bangla Technology News : By 2024, women can go on the first lunar mission)

নাসার এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে আর্টেমিস (Artemis Mission- NASA)। ১৯৭২ সালে চাঁদে প্রথম মানুষ পাঠিয়েছিল। নাসার তরফে আবার ২০২৪ সালে একজন পুরুষ ও একজন নারীকে চাঁদে পাঠানোর ব‍্যবস্থা করা হচ্ছে। মহাকাশচারীরা অ্যাপোলোর মত একটি ক্যাপসুলে চাঁদের মাটিতে চলাফেরা করবেন। যেটির নাম দেওয়া হয়েছে ওরিয়ন। এসএলএস নামে একটি রকেট এটি উৎক্ষেপণ করবে।

নাসার এক গবেষক জিম ব্রাইডেনস্টাইন জানিয়েছেন, আগামী চার বছরের নাসার খরচ হবে প্রায় ২৮ মিলিয়ন ডলার। এই খরচের মধ্যে এসএলএস-এর উৎক্ষেপণ, ওরিয়নের খরচ, নভোচারীদের যাবতীয় খরচ ধরা হয়েছে এই বাজেটের মধ্যে (Budget includes SLS Launch, cost of Orion, basic costs of Astronauts)। ব্রাইডেনস্টাইনের তরফে জানানো হয়েছে, যে মহিলা মহাকাশচারীর পূর্বে মহাকাশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা রয়েছে। ইতিমধ্যে কোন আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন তিনি ভ্রমণ করেছেন, তাকেই এই মিশনের জন্য বেছে নেওয়া হবে।

astronaut on the soil of moon
চাঁদের মাটিতে নভোচারী (ফটো ক্রেডিটঃ নাসা)

ইতিমধ্যে সাক্ষাৎকারে ১২ জন মহিলা মহাকাশচারীর মধ্যে থেকে পাঁচজনের নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। চলতি বছরের গোড়ারদিকে প্রশিক্ষণ শেষ করে নাসায় যোগদান করেছেন তারা। নাসার পরিকল্পনা অনুযায়ী চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে যেখানে বরফ এবং জল জমে রয়েছে সেই নমুনা সংগ্রহ করা তাদের লক্ষ‍্য (NASA wishes to collect water and ice samples from the moon’s south pole)।

ইতিমধ্যে বেশকিছু সংস্থাকে অবতরণ যানের জন্য নকশা তৈরির বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে নাসার তরফে। নাসা দীর্ঘমেয়াদি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য চাঁদে বেসক্যাম্প তৈরির পরিকল্পনাও চালাচ্ছে বলে সূত্রের খবর।