রিলিজ হলো আদিবাসী মেয়ে চাঁদমণী-র ‘ভালোবেসেছি তাই হেরেছি’ গানটি

এই ক্ষুদে মেয়েটি হঠাৎ করেই নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। কারণ তার কন্ঠে জাদু রয়েছে। অবশেষে সুদীর্ঘ প্রতীক্ষার পর মুক্তি পেল আদিবাসী মেয়ে চাঁদমণী হেমব্রম- Chandmoni Hembram- এর সংগীত ‘ভালোবেসেছি তাই হেরেছি’-Bhalobesechi Tai Herechi. প্রকৃতপক্ষে চারিদিকে লকডাউন থাকায় এই গানটি রিলিজ করতে খুব অসুবিধা হচ্ছিল। অবশেষে অনেক বাধা পেরিয়ে দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এই সংগীত মুক্তি দিল সন্দীপন এবং পরিবার- Sandipan And Paribar. চলুন আমরাও শুনে নেই সেই বিখ্যাত গানটি।

এই জুলাই মাসের 24 তারিখে গানটি ইউটিউবে রিলিজ করা হয়েছিল। এ অবধি দুই লাখ মানুষ এই গানের ভিডিওটি দেখে নিয়েছে। গানটি আপনারা দেখলেই বুঝতে পারবেন খুব সুন্দর গল্প বলা হয়েছে। ভালো তো একটা গল্পের মিশেলে গানটি ভিডিও করা হয়েছে।
কয়েকদিন আগে চাঁদমণি হেমরম এর একটি গানের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে হইচই ফেলে দিয়েছিল। প্রায় দশ লক্ষেরও অধিক মানুষ সেই গানটি শুনেছে। আর এই ভাইরাল হওয়ার দৌলতে সুদূর বলিউড তার প্রতিভাকে সম্মান না জানিয়ে পারেনি।

তাছাড়াও কয়েকদিন পূর্বে চাঁদমণীকে একটি রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করতে দেখা গেছে। সেই গানের ভিডিওটি এখন সোশ্যাল মিডিয়াতে তুমুল হইচই ফেলে দিয়েছে। সে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সখী ভাবনা কাহারে বলে গানটি কোন যন্ত্র ছাড়াই খালি গলায় এক মনমুগ্ধকর সুরে গিয়েছে। আর এসব দেখে দর্শকগণ একেবারে পাগল হয়ে গেছে।

জানা গেছে এখন চাঁদমণি দশম শ্রেণীতে পড়ছে। একটা নাম না জানা ক্ষুদ্র গ্রামের আদিবাসী ঘরে জন্ম হয়েছে তার। তার পারিবারিক অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। সে পড়াশোনা তো খুব একটা ভালো নয়। কিন্তু তাহলে কি হবে? তার গানের গলা অসাধারণ। গানের প্রতি তারেই অগাধ ভালোবাসা এবং গানের দক্ষতার দরুন তাকে ভারতের প্রতিটি মানুষ চিনে ফেলেছে। তাই মেধা থাকলে তার প্রকাশ পাবেই একদিন। লোকের সম্মান প্রদর্শন করবেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.