CPIM Bandh in Bengal : পরীক্ষা না দিতে পেরে কেঁদে ফেললেন কলেজ ছাত্রী, বামেদের অবরোধে অশান্তি

বিধানসভা ভোট একদম সামনেই চলে এসেছে, এইরকম সময়ে বামেদের পক্ষ থেকে একটি ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছিল। বামেদের ধর্মঘটের জন্য বিভিন্ন স্টেশনে সমস্যায় পড়ছে অনেক কলেজ ছাত্রীরা। অবরোধ করার জন্য বহু শিক্ষার্থীরা তাদের পরীক্ষা দিতে যেতে পারছেন না। (CPIM Bandh in Bengal college girl cries for unable to attend exam)

বামেদের ধর্মঘটের জন্য একজন কলেজছাত্রী আটকে পড়েছিল পান্ডুয়া স্টেশন এবং তিনি অবরোধকারীদের কাছে অনুরোধ করেছিল যেন অবরোধ তুলে নেওয়া হয় কিন্তু, কোনোরকম প্রতিক্রিয়া না পাওয়ার পরের স্টেশনেই দাঁড়িয়ে কাঁদতে শুরু করে সেই ছাত্রী। এছাড়া বামেদের ধর্মঘটের জন্য অশান্তি সৃষ্টি হয় এন্টালির। মিছিলে মিছিলে ছিল এন্টলির থেকে শুরু করে কলেজ স্ট্রীট এই মিছিলে ছিল।

অনেক বাম এবং কংগ্রেসের সমর্থকরা মিছিলের জন্য অনেক দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয় এমনকি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। বামেদের ধর্মঘটের জন্য অশান্তি সৃষ্টি হয় মৌলালি মোড়ে, সেখানে অনেক বাস আটকে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। রাস্তার মধ্যে সমস্ত যানবাহনে আটকে দেওয়ার জন্য জালানো হয় অনেক খড় এবং টায়ার।

মৌলালি মোড় হল একটা ব্যস্ততম জায়গায় মন সেখানে নাম সমর্থকদের বিক্ষোভ এর জন্য ১৫ থেকে ২০ মিনিট আটকে ছিল যানবাহন চলাচল। বাম কংগ্রেস সমর্থনে যে বনধ রাখা হয়েছে সেই বন্ধের প্রভাব অনেকটা রাজ্যে পড়েছে। আসানসোলে অনেকেই এই বনধ মেনে চলছেন। আসানসোলের এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি হয়েছে জানা গেছে যে, অনেক পথচারী এবং আরোহীদের মারধর করা হয়েছে বনধ না মানার জন্য।

চুঁচুড়াতে শুক্রবারেও বন্ধের প্রভাব পড়েছে। সেখানে পুলিশের সঙ্গে কোনরকম অশান্তি না করেই বনধের সর্মথকরা তাদেরকে মিষ্টিমুখ করিয়েছেন। সাথে ছিল চকলেট কিন্তু দেখা গেছে যে সেই পুলিশরা চকলেট নিতে চাননি। সম্পূর্ণ রাজ্যজুড়ে বনধ ডেকেছে বামেরা। এই বনধেরর সমর্থন করছেন কংগ্রেসও। বনধের জেরে যাদবপুরে রেল গুলি অবরোধ করা হয়েছে এবং সেখানে হাসনাবাদ ট্রেন সহ বারুইপুর লোকাল সমস্ত কিছু আটকে দেওয়া হয়েছে।