রাত দুপুরে কঙ্গনার বাড়ির সামনে গুলির আওয়াজ! নিযুক্ত হলো পুলিশ প্রহরী

সুশান্ত সিং রাজপুতের (Sushant Singh Rajput) বিতর্কিত মৃত্যুর পর থেকে নেপোটিজম বা স্বজনপোষণের দায়ে দুষ্ট হয়েছে বলিউডের হেভিওয়েট প্রডিউসার এবং অভিনেতারা। আর এই ব্যাপারটা তে সবথেকে বেশি জড়িয়ে পড়েছেন কঙ্গনা রানাওয়াত (Kangana Ranaut)। তবে তার হুংকার কে মুম্বাইয়ের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির নামকরা কিছু লোকজন ভালোভাবে নেয়নি। এমনকি তাকেও মেরে ফেলা হতে পারে বলে সেই ধরনের আশঙ্কার কথা বলছেন। তবে কুইন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি কোন পরিস্থিতিতেই নিজেকে শেষ করে দেবেন না।

এরকম জলঘোলা পরিস্থিতিতেই নতুন একটা বিপদ এল।এবার কঙ্গনার মানালির বাসস্থানের সম্মুখেই গুলির আওয়াজ শোনা গেল (Gunshot in front of queen’s house) । এসব দেখে তিনি নিকটবর্তী থানাতে অভিযোগ দায়ের করেন। হলে থানা থেকে পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয় তার বাড়ির সামনে।

চলুন আমরা শুনে নেই কঙ্গনার কথা থেকেই সত্তিকারের কি ঘটেছিল সেদিন? তিনি জানান,”শুক্রবারে আমি তখন শোবার ঘরে। তখন এগজ্যাক্টলি রাত 11:30. আমার তিনতলার ঘরের বাইরের দিকে হঠাৎ করে একটা জোরালো শব্দ শুনতে পাই। প্রথম দিকে আবার ধারণা হয়েছিল যে কেউ বাজি ফাটাচ্ছে। তবে একটা কথা ঠিক যে এই মুহূর্তে মানালিতে কোন ভ্রমণকারী উপস্থিত নেই। তাই বাজি ঘটার সম্ভাবনাও নেই।”

তিনি বলে চলেছেন,”পরবর্তীকালে একই ধরনের আর একটা আওয়াজ শুনতে পাই। আর তখনই আমার ব্যাপারটি পরিষ্কার হয়ে যায়। কষ্ট জানতে পারি যে গুলি ফাটানো হচ্ছে। তাই আমি সাথে সাথে নিরাপত্তারক্ষীর কাছে চলে যাই। নিরাপত্তারক্ষী প্রথমদিকে বলেছিলেন যে কোন বাচ্চা হয় তো এরকম করছে। কিন্তু আমি সহ আরো চারজন লোক একসাথে বসে স্পষ্ট বুঝা যায় যে এটা সুনিশ্চিতভাবে গুলির শব্দ। আবার সিকিউরিটি হয়তো কোন কারণে তা বুঝে ওঠেননি।”

পরবর্তীকালে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরো শক্ত করতে কুল্লু থানায় ডায়েরি করা হয়। থানা ডিএসপি কঙ্গনার বাড়িতে বড়োসড়ো এক পুলিশ বাহিনীকে তার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। তবে তদন্ত করার পর সন্দেহজনক কোন সূত্র ধরা পড়েনি।

এছাড়াও বাড়তি সতর্কতার হিসেবে শুক্রবার রাত্রিবেলা ওই পাড়াতে বাইরে থেকে আসা সবগুলো গাড়ির ডিটেলস পর্যবেক্ষণ করছে। তাছাড়া ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী (National Award Winner Kangana Ranaut) এই অভিনেত্রীর একটা নিরাপত্তার প্রশ্ন তো সবসময় থাকেই। তাই তার বাড়ির সামনে 24 ঘন্টার জন্য পুলিশের লোক নিয়োগ করা হয়েছে। তাছাড়া হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর কাছেও প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে।

তবে পুরো ব্যাপারটি এখনো আঁধার এই রয়েছে। কারণ এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি কী উদ্দেশ্যে বা কোন লোকেরা কুইন এর বাড়ির নিশানায় গুলি চালিয়েছে। তবে কঙ্গনার অনুমান অনুযায়ী, “সুশান্তর মৃত্যুর পর তিনি সব থেকে বেশি কথা ফাঁস করে দিচ্ছেন। তাই হয়তো কেউ তাকে ভয় দেখাতে চায়।”