বউ কে গাছে বেঁধে নিপীরণ! স্বামীসহ গ্রেপ্তার 2

বাংলাদেশের জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে খাদিজা খাতুন নামের কুড়ি বছর বয়সী এক গৃহবধূকে প্রথমে লিচু গাছের সঙ্গে বাধা হয়। এরপর শরীরের বিভিন্ন জায়গায় লোহার নিড়ানি আগুনে গরম করে ছ্যাকা দিয়ে নির্যাতন করে তার স্বামী। বুধবার রাত্রিবেলায় আক্কেলপুরের পৌরশহরের শ্রীকৃষ্ণপুর স্কুল পাড়া মহল্লায় এই ভয়াবহ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

নির্যাতনের ফলে ওই গৃহবধূ প্রচণ্ড চিৎকার করে। তার চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে এবং তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। তার এই নির্যাতনের ঘটনাটি শ্বশুর শাশুড়ির নাকের ডগায় ঘটেছে। তবুও পুত্রবধূকে রক্ষা করতে রক্ষা করতে কেউ এগিয়ে আসেনি।

জানা গেছে খাদিজা খাতুন শাকিল হোসেন এর বউ। তার বউ কে গাছে বেঁধে লোহা গরম করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছ্যাকা দেওয়ার কথা মেনে নিয়েছেন। আর এই ঘটনায় গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে বৃহস্পতিবারে থানায় মামলা দায়ের করেছেন ।পুলিশ গৃহবধূর স্বামী শাকিল ও তার বড় ভাই আসলাম হোসেনকে গ্রেপ্তার করে এই নির্যাতনের ব্যাপারটি নিশ্চিত হয়ে। এব্যাপারে আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবু ওবায়েদ সর্বতোভাবে সহায়তা করেছেন।

গণমাধ্যমকে খাদিজা খাতুন বলেন, “আমার স্বামী একজন রাজমিস্ত্রি। আড়াই বছর আগে ওর সাথে আমার বিয়ে হয়। আর বিয়ের পর থেকেই শশুর শাশুড়ি আমাকে মেনে নিতে পারছিলেন না। আমার স্বামী ভালোই। শুধুমাত্র শ্বশুর-শাশুড়ির কারণেই সে আমাকে মারধর করত। তাছাড়া সন্দেহ করতো আমাকে।”

তিনি আরো বলেন,” আমি এ কারণে মোবাইল ব্যবহার করিনা। বুধবার রাত্রিবেলা কিছু বোঝার আগেই সে আমাকে বাড়ির পাশের লিচু গাছের সাথে পিছমোড়া দিয়ে আমার হাত দুটি দড়ি দিয়ে বাঁধে। আমার শ্বশুর-শ্বাশুড়ি উঠোনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এরপর আমার স্বামী লোহার নিড়ানি গরম করে দুই গালে, দুই হাতে ও পায়ে ভয়ানক ছ্যাকা দেয়। যন্ত্রণা অসহ্য হয় আর চিৎকার দিয়ে অজ্ঞান হয়ে যাই।”

আরো জানান, “স্বামী আমাকে নির্যাতন করেছে তবুও স্বামীর সংসার এই থাকতে চাই। এই কারণেই বাবা-মাকে প্রথমে ব্যাপারটি বলিনি। আমার বাবার বাড়ি শান্তাহার গ্রামে। পূর্ববর্তী ওয়ার্ড কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম নিশ্চিত করেন পুরো ঘটনাটি। হাসপাতালে ডাক্তার নাজমুল ইসলাম বলেন, দুই হাতে ও পায়ে ক্ষত রয়েছে।

কেন স্বামী তাকে এরকম অসুরের মতো মারধোর করলেন?

শাকিল হোসেন জানান, “দুদিন আগে আমার মোবাইলে ফোন করে একটা ছেলে আমার বউয়ের সঙ্গে কথা বলতে চায়। আজকে আবার ওই একই নম্বর থেকে মিসকল দিয়েছিল। আর এই কারনেই আমি প্রচণ্ড ক্ষিপ্ত হয়ে যাই। আর বউকে লিচু গাছের সঙ্গে বেঁধে গরম ছ্যাকা দেই।”

গৃহবধূ শ্বশুর আবদুস সালাম বলেন, ছেলের বউকে প্রচন্ড আমরা রক্ষা করতে গেলে আমাদের উপর হামলা করত। আমরাও সময় বউকে রক্ষা করতে গিয়েছিলাম। এরপর লোকজন দরজা ভাঙচুর করে বাড়ির ভেতরে ঢুকে বউকে উদ্ধার করে এবং হাসপাতালে নিয়ে যায়। ওসি আবু ওবায়েদ জানান, এই ঘটনায় থানায় গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। গৃহবধূর স্বামী ও তার ভাসুর কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

হাই বন্ধুরা, প্রতিদিন বাংলাদেশের গুরুত্বপূ্র্ণ খবর পাওয়ার জন্য bangla.365reporter বুকমার্ক করে রাখুন। আর ফেইসবুক, টুইটার এবং পিন্টারেস্টে আমাদের সঙ্গে কানেক্ট করতে পারেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.