“মৃত্যুর পরেও তোমাকে ভালোবাসতে চাই”- করোনায় মৃত যুবকের শেষ চিঠি তাঁর স্ত্রীকে

সারা বিশ্ব জুড়ে এক বিধ্বংসী আলোড়ন সৃষ্টি করেছে চীনা ভাইরাস করোনা। বিগত কয়েক মাস ধরে এই ভয়াবহ করোনা রোগের কারণে এক মৃত্যু মিছিলের সূচনা হয়েছে। আর মানুষ মারা যাওয়ার নিরিখে সর্বোচ্চ আছে আমেরিকা। সেখানে এরইমধ্যে 50 হাজারের উপরে মানুষ মারা গেছেন। আর এই মৃত্যু সংখ্যার দিক থেকে সব দেশের থেকে বেশি। (Jonathan Coelho to his wife Katie – I will love you even after death. Jonathan last letter goes viral)

এবার নেট দুনিয়ায় ভারাক্রান্ত হয়ে পড়েছে আমেরিকার এক কম বয়সী যুবকের মৃত্যু নিয়ে। জোনাথান নামের সেই যুবক গত একমাস যাবত করোনা রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন। কিন্তু জানা যায় তার মৃত্যু হয়েছে হাসপাতালে মাত্র 32 বছর বয়সে। সে তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে রেখে যান। আর তার এই মৃত্যুর সংবাদ তার স্ত্রীকে দেয়া হয়। খবর শুনেই দ্রুত তিনি ছুটে আসেন। কিন্তু এই রোগটি ছোঁয়াচে বলে তার স্বামীর মৃতদেহের কাছে তাকে যেতে দেওয়া হয়নি। তিনি শোকে বিহ্বল হয়ে পড়েন। (morar mrittyur aga bou ke lekha swamir sesh chithi)

হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মীরা তাকে তার স্বামীর মোবাইলটি ফিরিয়ে দেন। আর ফোনটি খুললেই এমন এক মেসেজ দেখেন যে তিনি শোকে বিহ্বল হয়ে পড়েন। ওই যুবক তার স্ত্রীর জন্য একটি নোট লিখে গেছেন। ওই যুবক বলেছেন, “আমার জীবনের সেরা তুমি। তোমাকে ছাড়া আমার জীবন পূর্ণ হতো না। তাই না চাইতে সব দিয়েছো। আমি মরে যাওয়ার পরেও তোমাকে আমি ভালবেসে যেতে চাই। এ নোট দেখে তার স্ত্রী কেটি ভয়ানক আবেগ তাড়িত হয়ে যান আর কেঁদে ফেলেন।

এই নোট তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় সকলের সঙ্গে শেয়ার করেছেন। আর এই মৃত্যুর আগের নোট রীতিমত ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়।

হাই বন্ধুরা, প্রতিদিনের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা পড়ার জন্য bangla.365reporter বুকমার্ক করে রাখুন। আর ফেইসবুক, টুইটার এবং পিন্টারেস্টে আমাদের সঙ্গে কানেক্ট করতে পারেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *