রাজধানীর নারেলা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেটে অগ্নিকাণ্ড, আগুন নিয়ন্ত্রণে দমকলের ২৬ টি ইঞ্জিন

ফের অগ্নিকাণ্ড রাজধানীতে। এবার দিল্লির নারেলা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেটে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে (Massive fire breaks out in Narela industrial estate, Delhi)। শনিবার ভোররাতে ঘটনাস্থলে দমকলের ২৬ টি ইঞ্জিন তৎক্ষণাৎ পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। এখনো পর্যন্ত প্রাণহানি কিংবা ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি। তবে কিভাবে আগুন লাগলো তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে দমকল কর্মীদের তরফে।

ভয়াবহ আগনের গ্রাসে চলে যায় গোটা এলাকা। কিছুক্ষণের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে। প্রথম অবস্থায় দমকলের ১১ ইঞ্জিন আগুন নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হলে পরে আরো ১৫ টি ইঞ্জিনের সাহায্যে আগুন নেভানোর চেষ্টা করা হয়। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী বর্তমানে কুলিং অপারেশন চলছে নারেলা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেট জুড়ে।

last year fire in in Delhi Tughlakabad slums
দিল্লির তুঘলকাবাদের বস্তিতে আগুন

এর আগে নারেলা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেটের অগ্নিকান্ডে ভস্মীভূত হয় দুটি কারখানা গত ডিসেম্বরে। সেসময় দমকলের বাইশটি ইঞ্জিন আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। চলতি বছরের মে মাসে দক্ষিণ-পূর্ব দিল্লির তুঘলকাবাদের বস্তিতে আগুন লেগে ভস্মীভূত হয় দেড় হাজার ঘর (1500 houses in Tughlakabad slums in Delhi burnt to ashes)। মাঝরাতে ঘটে যাওয়া এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড আতঙ্ক সৃষ্টি করেছিল বাসিন্দাদের মনে। তবে আগুন লাগার কিছুক্ষণের মধ্যেই দিল্লি পুলিশ ও দমকলের তৎপরতায় তুঘলকাবাদের বাসিন্দাদের স্থানান্তরিত করা হয়। ফলে প্রাণহানির ঘটনা আটকানো গিয়েছিল।

দিল্লির দমকল আধিকারিকেরা কথায়, রাত ১২টা ৫০ নাগাদ আগুন লেগেছিল তুঘলকাবাদ এর বস্তিতে। ঘটনাস্থলে ২৮ ইঞ্জিনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছিল এবং তড়িঘড়ি বাসিন্দাদের স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। পরপর এরকম ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটে চলেছে রাজধানীতে। এর কারণ ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেটের গাফিলতি নাকি প্রশাসনের নজরদারির অভাব সেই প্রশ্নই উঠে আসছে।