একই মঞ্চে মা এবং মেয়ে, চোখ রাঙানি কে উপেক্ষা করে হয়ে গেল বিয়ে

বয়সে ছোট ছেলেকে বিয়ে করা অথবা ডিভোর্সি ছেলে অথবা মেয়েকে বিয়ে করা এসব এখন খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার সকলের ক্ষেত্রেই। কিছুদিন আগেই বাবা দ্বিতীয় বিয়ে দিয়ে রীতিমত সোশ্যাল মিডিয়াতে ফেমাস হয়ে গিয়েছিলেন সায়ন পাল। কেউ আর এখন একা থাকতে পছন্দ করেন না। অনেকটাই আপডেট হয়ে গেছেন মানুষজন। সমাজের নিয়ম পিছনে ফেলে দিয়ে আস্তে আস্তে এগিয়ে যাচ্ছে সামনে। (Uttar Pradesh, Gorakhpur News : Mom and daughter gives a damn care to the society and marries)

তবে এবার মা এবং মেয়ের একসাথে বিয়ে হলো একই মণ্ডপে। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের গোরখপুর এ।সেখানে গণবিবাহ মঞ্চে একইসঙ্গে বিবাহ হলো মা এবং মেয়ের। সেই গণবিবাহ বিয়ে হয়েছে অন্য এক মুসলমান যুগলের।

মহিলার নাম বেলি দেবী। বয়স 53 বছর। স্বামী মারা গেছে 25 বছর আগেই। তারপর যা হয়, একহাতে মানুষ করেছেন ছেলেমেয়েদের। তবে তাকে সাহায্য করেছেন তার দেওর জগদিশ।আর্থিক মানসিকভাবে সব সময় পাশে ছিলেন তিনি। জগদীশবাবু পেশায় কৃষক। তিনি অবিবাহিত। বয়স 55 বছর। জীবনের সায়াহ্নে এসে দেওর কে বিয়ে করবে বলে সিদ্ধান্ত নিলেন বেলি দেবী।

সমস্ত ছেলে মেয়েদের বিয়ে হয়ে যাবার পর বাকি ছিল ছোট মেয়েটি। তাই বলে দেবে ঠিক করলেন যে সমাজের চোখ রাঙানি কে উপেক্ষা করে মেয়ের সঙ্গে একই মণ্ডপে বিয়ে করবেন তিনি।

তাদের বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন সাধারণ মানুষ সহ স্থানীয় প্রশাসন। পুরো বিষয়টি প্রসঙ্গে বেলি দেবি জানান যে, সকলের বিয়ে হয়ে যাবার পর আমার জীবনে একাকীত্ব চলে আসবে। তাই ঠিক করলাম যে যে মানুষটি আমার সঙ্গে সব সময় ছিল, তাকে আমি বেচে নেবো আমার জীবনসঙ্গী হিসাবে।

মায়ের এমন সিদ্ধান্তে খুশি তার ছেলে মেয়েরাও। মায়ের বিয়ের প্রসঙ্গে ইন্দু জানান যে, কাকা এতদিন আমাদের সকলের খেয়াল রেখেছেন। আমাদের সকলকে বড় করে তুলেছেন। আমার খুবই ভালো লাগছে যে, এবার থেকে কাকাকে আমি বাবা বলে ডাকতে পারবো। তারা দুজনে একসঙ্গে আমাদের খেয়াল রাখতে পারবেন।

Mom and daughter gives a damn care to the society and marries
একই মঞ্চে মা এবং মেয়ে, চোখ রাঙানি কে উপেক্ষা করে হয়ে গেল বিয়ে (প্রতীকী ফটো), (ক্রেডিট : Ahona on Rtv Drama)