এলাকা দখলের যুদ্ধে রক্তাক্ত হলো কোচবিহারের নাটাবাড়ি

Cooch Behar : মূলত নাটা বাড়িতে দুটো গ্রুপ বা দলের মধ্যে ধাপে ধাপে সংঘর্ষ শুরু হয়। আর এর ফলে কোচবিহারের নাটাবাড়ি এলাকার পরিস্থিতি উত্তাল হয়ে ওঠে। আর দুই দলের মধ্যে গোলমাল এর সূত্রপাত রবিবার রাত্রিবেলা থেকে শুরু হয়। আর গোটা রাত্রি ধরে এই পরিস্থিতি শান্ত হয়নি। পুনরায় সকালবেলা হতে সংঘর্ষ শুরু হয়ে যায়। (Deori Village,Natabari area, Chulkani Bazar from Cooch Behar becomes bloody for a huge fight for the possession of the area)

মূলত নাটাবাড়ি দেওড়াই গ্রাম এখন কেউ দেখলে সে মনে করবে ওটা মূলত একটা যুদ্ধক্ষেত্র। কারণ দুই গোষ্ঠী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ চালাচ্ছে ওখানে। তাদের দুই দলই নিজেদের আধিপত্য কায়েম করতে চায় ওই এলাকায়। আর স্বাভাবিকভাবেই এই গণ্ডগোলের কথা পুলিশের কানে চলে যায়। তুফানগঞ্জ এর থানা পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে তৎপর হয়ে ওঠে। আর তারা বিশাল এক বাহিনী নিয়ে ওই সংঘর্ষের স্থানে উপস্থিত হয়। তবে পুলিশ এসেও এই সংঘর্ষ থামাতে সক্ষম হয়নি। তাড়াশে লক্ষ্য করে যে ওই স্থান রক্তে ভেসে যাচ্ছে।

অনেকগুলো মানুষ গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন। আর ওই এলাকায় সংলগ্ন একটি বাজার যার নাম চুলকানি বাজার এলাকা রক্তাক্ত হয়ে গিয়েছে। আর এই গণ্ডগোলের সূত্রপাত সম্পর্কে জানালেন স্থানীয় জনগণ। তাদের মতে, কিছুদিন পূর্বে এই অঞ্চলের নতুন সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে। আর এই কারণে বিরোধী গোষ্ঠী তা মেনে নিতে পারেননি। ফলে তুমুল সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটে।

সূত্রমতে, ওই অঞ্চলের আগের অঞ্চল সভাপতি নাম ফারুক মন্ডল। আর বর্তমানে নতুন করে অঞ্চল সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন মজিবর রহমান। আর দুই দলই চাইছিলেন এই এলাকা নিজের দখলে রাখতে। আর এভাবেই সংঘর্ষ ঘটে যায়। (Former Area President Farooq Mondal vs Current Area President Mojibar Rahman)

মূলত রবিবার রাত থেকে এই গন্ডগোল শুরু হয়ে যায়। জানা গেল, এই দুই ব্যক্তিই মূলত তৃণমূল দলের। পুলিশ অবশ্য এই গন্ডগোল থামাতে প্রচুর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, দুই দল থেকে অন্তত দশজনকে অ্যারেস্ট করেছে পুলিশ কর্তৃপক্ষ।

Natabari area from Cooch Behar becomes bloody for a huge fight
এলাকা দখলের যুদ্ধে রক্তাক্ত হলো কোচবিহারের নাটাবাড়ি (প্রতীকী ফটো)