মিঠাই কি খড়কুটো থেকে টোকা হচ্ছে ? অভিনেত্রী ও পরিচালকের গোপন রহস্য ফাঁস

আলাদা চ্যানেলে এই ধারাবাহিক গুলি দেখালেও কোথাও না কোথাও খরকুটো নামক ধারাবাহিকটি প্রভাবিত করেছে জি বাংলার দুটি ধারাবাহিক মিঠাই এবং আমাদের এই পথ যদি না শেষ হয়,কে। খড়কুটো সিরিয়ালে আমরা দেখতে পাই গুনগুন এবং সৌজন্যের দাম্পত্য প্রেম। এই প্রেম এখন ছড়িয়ে পড়েছে মিঠাই সিরিয়ালেও। ফিডব্যাক আগের মত পুরোপুরি অস্বীকার করতে পারছে না মিঠাই এর উপস্থিতি। ফলে ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে একটি প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হচ্ছে ।(Bangla Serial Facts: Netijen smasa as Khorkuto, Mithai and Ei poth jodi na sesh hoy serial as same screenplay)

সম্প্রতি তিনটি ধারাবাহিক এর মুখ্য চরিত্র এবং অভিনীত একাধিক দৃশ্য এই প্রশ্ন তুলেছে, কেন একে অপরের সঙ্গে এতটাই মিল পাওয়া যাচ্ছে? খরকুটো ধারাবাহিকের মূল আকর্ষণ সৌজন্যে এবং গুনগুন। এই জুটির মধ্যে খুনসুটির মাঝখানে ধরা দেয় প্রেম এবং ভালোবাসা। খরকুটা ধারাবাহিকের পুটু পিসি পর্যন্ত জানিয়েছেন যে, তোদের মধ্যে ঝগড়া দেখলে বোঝা যায় যে তাদের মধ্যে একটা টান রয়েছে।

ইস এই রকমের ঝগড়া আমরা দেখতে পাই মিঠাই সিরিয়ালে। সেখানে মুখ্য অভিনেতা সিদ্ধার্ত এবং মিঠাই এর মধ্যেও একইভাবে মনোমালিন্যের মধ্যেই ধরা দিচ্ছে প্রেম। সৌজন্যের মতোই সিদ্ধার্ত কাজপাগল মানুষ। মুখে হাসি প্রায় নেই বললেই চলে। বিয়েটাও মন থেকে হয়নি তাদের। দাদুর কথা রাখতে গিয়ে গ্রামের ভিতরে তোমাকে বিয়ে করতে হয়েছে তাকে। কিন্তু কোনভাবেই তাকে মেনে নিতে পারছি না সে।

আবার কিছুদিন আগেই ছোটপর্দায় এসেছে আরও একটি নতুন ধারাবাহিক আমাদের এই পথ যদি না শেষ হয়। ধারাবাহিকের প্রথম ঝলক অনুযায়ী, হলুদ ট্যাক্সি চালক উর্মির বন্ধু সাত্যকি একেবারেই সৌজন্যের মত। তার চোখে চশমা এবং গুরু গম্ভীর ভাব। অন্যদিকে উর্মি যেন একেবারে গুনগুন অথবা মিঠাইয়ের প্রতিচ্ছবি।

তাহলে তিনটি ধারাবাহিক এর মধ্যে কি করে এতোখানি মিল পাওয়া যায়। মিঠাই এর কেন্দ্রীয় চরিত্র সৌমিত্রা কুন্ডু আনন্দবাজার ডিজিটাল কে জানিয়েছে, মিল যখন দেখছেন তখন অমিলগুলো দেখবেন। সেগুলো কেন চোখে পড়ছে না। গুনগুন বড়লোক বাড়ির মেয়ে। মিঠাই একজন গরীব ঘরের মিষ্টি বিক্রেতা। গুনগুন সৌজন্যে একেবারেই ভয় পায় না। কিন্তু আমি চাই তার স্বামীকে খুবই ভয় পায়।

বাকি প্রেম ভালোবাসা সব সিরিয়ালেই কিছুটা এক থাকে। তবে মিঠাই এর ক্ষেত্রে বলতে পারি যে, কোন রকমের যদি আপনারা দেখতে পান তা পুরোটাই কাকতলীয়। মিঠাই ধারাবাহিকটির পরিচালনায় রয়েছেন রাজেন্দ্র প্রসাদ দাস। তিনি প্রথমেই জানিয়ে দিলেন যে, শুটিংয়ের চাপে পড়ে তিনি এখনো পর্যন্ত খরকুটো ধারাবাহিক দেখে ওঠেননি। তাই কোন রকম মিল যদি আপনারা খুঁজে পান তাহলে পুরোটাই হবে অনিচ্ছাকৃত। বহু ধারাবাহিকের মধ্যে অথবা সিনেমার মধ্যে অল্পবিস্তর মিল দেখতে পাওয়া যায়। এগুলি নিয়ে এতো ভাবনা চিন্তা করার কিছু থাকেনা।

netijen smasa as khorkuto mithai and ei poth jodi na sesh hoy serial as same screenplay
মিঠাই কি খড়কুটো থেকে টোকা হচ্ছে ? অভিনেত্রী ও পরিচালকের গোপন রহস্য ফাঁস