Junior Mridha Murder Case : গার্লফ্রেন্ড প্রিয়াঙ্কা, জুনিয়র মৃধাকে করা একাধিক এসএমএস কি কারনে মুছে ফেলেন ?

একাধিক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এলো জুনিয়র মৃধা খুনের মামলা কে ঘিরে। সিবিআই-এর সূত্রের খবর থেকে জানা যায় যে দিন জুনিয়র খুন হয়েছিলেন সেই দিন তার বান্ধবী প্রিয়াঙ্কা চৌধুরী নিজস্ব ফোন থেকে একাধিক এসএমএস আদান-প্রদান করেন এবং সেসব মুছে দেন ফোন থেকে। (Salt Lake Murder News : New exciting information found in Junior Mridha murder case, Girlfriend Priyanka Chowdhury deletes many sms)

জানা গিয়েছিল এই সকল এসএমএস করা হয়েছে খুনের আগে এবং পরে। যদিও এসএমএস গুলি আবার পুনরুদ্ধার করেছেন চণ্ডীগড়ের সেন্ট্রাল ফরেনসিক ল্যাবরেটরির এক্সপার্টরা। পুনরুদ্ধার করা এসএমএস গুলির উপর ভিত্তি করে সিবিআইয়ের তদন্তকারীরা জেরা করেন প্রিয়াঙ্কাকে এবং তার সাথে সাথে জেরা করা হয় একজন প্রযোজক কে যিনি জুনিয়রের বন্ধু ছিলেন।

সিবিআই সূত্রের আরো খবর অনুযায়ী প্রিয়াঙ্কার ২ পরিচিত কেও ডেকে পাঠানো হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। প্রিয়াঙ্কা সল্টলেকের বাসিন্দা এবং তারই দুইজন পরিচিত কে সিবিআই তথ্যনুযায়ী জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা জানিয়েছেন।

এর আগেও এক দফা জেরার সম্মুখীন হতে হয়েছে প্রিয়াঙ্কাকে। ওই দিন অর্থাৎ শুক্রবার দুপুরে প্রিয়াঙ্কা চৌধুরী সামনে ছিল নিহত জুনিয়র এর মা শ্বেতা মৃধা। সিবিআই দীর্ঘ সাড়ে চার ঘণ্টা জেরা চালানোর পরও প্রিয়াঙ্কা খুনের কথা স্বীকার করেনি এমনটি জানিয়েছেন নিহতের মা। (Junior Mridha mother – Sweta Mridha)

সিবিআই সূত্রের খবর থেকে আরও বিশেষ কিছু জানা গেছে। প্রিয়াঙ্কা এবং জুনিয়র এর মধ্যে শেষ কথা হয়েছিল ২০১১ সালের ১২ ই জুলাই এবং তখন সময় ছিল রাত ৯টা বেজে ২০ মিনিট। এরপর জুনিয়রের ফোন থেকে একটি শেষ মেসেজ দিয়েছিল প্রিয়াঙ্কার ফোনে, সেই সময়টি ছিল ৯টা বেজে ৪০ মিনিট।
প্রিয়াঙ্কা এই এসএমএস এর কোন রিপ্লাই করেনি বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দা দল কিন্তু ১ ঘন্টা পরে প্রিয়াঙ্কার ফোনে ফোন আসে এক অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তির এবং সেটি আসে বেলঘড়িয়া এক্সপ্রেসওয়ের ধার থেকে।

জুনিয়র এর মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল সেদিন রাতেই বেলঘড়িয়া এক্সপ্রেসওয়ে এর ধার থেকেই। পাশাপাশি টালিগঞ্জের এক প্রযোজকের নাম উদ্ধার করা হয়েছে প্রিয়াংকার ফোন থেকে এইরূপ জানিয়েছেন সিবিআই। সন্দেহ হওয়ার কারণ হল ফোনের দিন প্রিয়াঙ্কা প্রায় ১৪ বার ওই প্রযোজক এর সাথে ফোনে কথা বলেছেন। সিবিআই-এর জেলা থেকে বাদ পড়েনি প্রিয়াঙ্কার গাড়ির ড্রাইভারও।

New exciting information found in Junior Mridha murder case, Girlfriend Priyanka Chowdhury deletes many sms
Junior Mridha Murder Case : গার্লফ্রেন্ড প্রিয়াঙ্কা, জুনিয়র মৃধাকে করা একাধিক এসএমএস কি কারনে মুছে ফেলেন ? (Internet photo)

ঘটনাটি যেদিন ঘটে সেদিন জুনিয়র একা রাত ৮টা নাগাদ বাড়ি থেকে বেরিয়েছিল বলে জানা গেছে সূত্রের খবর থেকে। উদ্ধার করা হয়েছে পেট্রোলপাম্পের একটি সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ যাতে দেখা গেছে ঐদিন রাতে সল্টলেকের নম্বর ট্যাংক এর কাছে জুনিয়ার বাইক চালিয়ে যাচ্ছেন, তখন রাত ৮টা ৪৫মিনিট। তবে ঐদিন বাড়ি থেকে সে একা বেরোলেও ফুটেছে দেখা গেছে তার বাইকের পিছনে বসে আছেন একজন অজ্ঞাত ব্যক্তি যাকে এখনো পর্যন্ত চিহ্নিত করা যায়নি। তবে গোয়েন্দারা জানিয়েছেন সেই অজ্ঞাত ব্যক্তি কে চিহ্নিত করতে তারা দৃঢ় ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।