আমি মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত, আমাকে দোষী বানানো হয়েছে- রিয়া চক্রবর্তী

পুনরায় দেশের শীর্ষ আদালত সুপ্রিম কোর্টের কাছে নালিশ করলেন রিয়া চক্রবর্তী (Rhea Chakraborty pleas to Supreme Court Again)। প্রসঙ্গত, সুশান্ত সিং রাজপুত কেসে তাকে মূল সন্দেহভাজন হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদ পর্ব শুরু হয়েছে। তো এখন মিডিয়ার বিরুদ্ধে সোমবারে এফিডেভিট করেন রিয়া চক্রবর্তী। তিনি অভিযোগ করেছেন,” মিডিয়া হাউসগুলো আমার বিরুদ্ধে গুজব ছড়াচ্ছে। সমস্ত বিচারের আগেই আমাকে দোষী বানিয়ে দেওয়া হয়েছে।”

তিনি আরো বলেন,” আমাকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে এখন। আমি বলির পাঁঠা হতে চাই না। আমি সুপ্রিম কোর্টের কাছে সুরক্ষা পাওয়ার আবেদন করছি। আমাকে নিয়ে রীতিমত হেনস্থা করা হচ্ছে। তাই আমি এখন মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছি। আমার ব্যক্তিগত আর কিছু নেই।”

তার কথা অনুসারে, তাকে সংবাদমাধ্যমগুলো অপরাধীর মতো ক্রমাগত জিজ্ঞাসাবাদ করে যাচ্ছে। তাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হচ্ছে সব সময়। বিচার হওয়ার আগেই আমাকে দোষী বানিয়ে ফেলেছে তারা।

এমনকি অভিনেত্রী এই প্রসঙ্গে 2G স্ক্যাম ও আরোশী তলওয়ার হত্যার ঘটনার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন,” ওই দুটি ঘটনাতেও বিচার হওয়ার পূর্বেই কয়েকজনকে টার্গেট করে ফেলেছিল সংবাদমাধ্যমগুলো। অযথা তাদেরকে হেনস্থা করেছিল ক্রমাগত। কিন্তু পরে প্রত্যেকে নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছিল।”

এই মুহূর্তে রিয়ার মতে সিবিআই তদন্ত বেআইনিভাবে হচ্ছে। তিনি বলেন যে, সুশান্তর (Sushant Singh Rajput) মৃত্যুর ঘটনা স্থল মুম্বাই। কিন্তু বিহারের গভমেন্টের কথা মেনে কেন্দ্রের এই সংস্থা ইনভেস্টিগেশন করতে পারেনা।

এক্ষেত্রে একটা কথা বলা বাহুল্য যে, সিবিআই পূর্বেই রিয়া, তার পরিবার এবং সব মিলিয়ে মোট ৬ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। আর এর পরেই রিয়ার অভিযোগ, শীর্ষ আদালতের আদেশ না আসা পর্যন্ত সিবিআই তদন্ত আরম্ভ করা একটা বেআইনি কাজ। এটা ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় সংবিধানের বিরুদ্ধে।

তিনি আরো বলেন,” এই ঘটনাটির স্থল মুম্বাই। এই পরিস্থিতিতে কিভাবে বিহার পুলিশ ও সিবিআই তদন্ত আরম্ভ করে?” তবে একটা কথা পরিষ্কার যে সুপ্রিম কোর্ট আগস্ট মাসের ৫ তারিখেই সুশান্তের কেসে বিহার মুম্বাই পুলিশ দুই পক্ষকেই ইনভেস্টিগেশন করার নির্দেশ দিয়ে দিয়েছে। এরপরে এই ঘটনাটির ইনভেস্টিগেশন এর দায়িত্ব অর্পণ করা হয় সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন অর্থাৎ সিবিআই এর কাছে।

সুশান্ত এর মৃত্যুর একমাস পরেই সামাজিক গণমাধ্যমে নিজেকে সুশান্তের প্রকৃত প্রেমিকা হিসেবে জাহির করেন। এরই সঙ্গে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah) এর নিকট সিবিআই তদন্তের আর্জি জানান। আর এখন সিবিআই তদন্ত আরম্ভ হয়ে গেছে। আর তিনি বেঁকে বসেছেন।