চাঞ্চল্যকর তথ্য! অসুস্থতায় কাতর সুশান্ত, অথচ পাশের ঘরেই উত্তাল পার্টি করছেন রিয়া

গত জুন মাসের ১৪ তারিখে নিজের বাড়িতেই মৃত্যুবরণ করেন বলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত (Sushant Singh Rajput)। আর এরপর থেকেই তার মৃত্যুতে ক্রমাগত রহস্যময় (Sushant Singh Rajput Death Is A Mystery) হয়ে উঠেছে। গোটা দেশজুড়ে তুমুল হইচই চলছে এখন। সুশান্তের অনুরাগীরা তার মৃত্যুর বিচার চাইছেন। আর এক্ষেত্রে লাখ লাখ মানুষ ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর (Sushant’s Girlfriend Rhea Chakraborty) উপরে।

আর এখানেই শেষ নয়। সুশান্তের মৃত্যু বরণ করার এক মাস পর তার বাবা কে কে সিং রিয়ার নামে বিহার পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করেন। শুধুমাত্র রিয়াই নয়। রিয়ার ভাই শোয়িক চক্রবর্তী (Showik Chakraborty- Brother Of Rhea), তার বাবা ইন্দ্রজিৎ চক্রবর্তী এবং তার মা সন্ধ্যা চক্রবর্তীর নামে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে (FIR Is lodged On Rhea And Her Family Members)। অপরদিকে সুশান্তের ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডা, শ্রুতি মোদি এবং আরো কয়েক জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আর অলরেডি সিবিআই এবং ইডি দুই সংস্থা একসঙ্গে এই মামলাটির নিষ্পত্তি করতে কাজ করে যাচ্ছেন। আর এর ভিতরে সুশান্তের গাড়ির প্রাক্তন ড্রাইভার মিডিয়াকে একটি চাঞ্চল্যকর খবর পেশ করলেন। তার কথা অনুযায়ী, “বেশিরভাগ সময়ই সুশান্তের উপর জোর জুলুম করতেন রিয়া। নিজের ইচ্ছা কে জোর করে সুশান্তের ঘাড়ে দিয়ে দিতেন। ফলে তাদের মধ্যে ঝগড়া অবশ্যম্ভাবী ছিল। তাছাড়া সুশান্তের কর্মচারীদের ছাঁটাই করে দিয়ে নিজের ইচ্ছামত কর্মচারী নিয়োগ করেছিলেন।”

তবে এখানেই তাঁর কথা শেষ হয়নি। তিনি আরেকটি সাংঘাতিক কথা বলেন। তিনি বলেন,” কোন কোন সময়ে সুশান্ত চরম অসুস্থতায় ভুগতেন। আর সেই সময়ে তার গার্লফ্রেন্ড হওয়া সত্ত্বেও তার দিকে কেয়ার করতেন না রিয়া। অন্য ঘরে তুমুলভাবে পার্টিতে মস্তি করতেন। সুশান্তের টাকা-পয়সার দিকেই তার প্রকৃত নজর ছিল।”
তিনি আরো বলেন,”রিয়া অথবা তার পরিবারের কেউই সুশান্তের দিকে কেয়ার করতো না। তার পরিবারের কোনো প্রকার দায় বদ্ধতা ছিলনা।”

এই মুহূর্তে সুশান্তের মৃত্যু মামলার কেসে রিয়া চক্রবর্তী খুব খারাপ অবস্থানে আছেন। সুশান্তের চালক ধীরেনের (Statement Of Sushant’s Driver Dhiren) এই কথাগুলো তাকে আরো খারাপ পজিশনে ফেলে দিল।