রিয়ার অপরাধ এখনো প্রমাণিত হয়নি, দোষারোপ বন্ধ করুন- সুপ্রিম কোর্ট

সুশান্ত (Sushant Singh Rajput) এর মৃত্যু ঘটনায় রিয়া চক্রবর্তী(Rhea Chakraborty) যে জড়িত তা এখনো প্রমাণ করা হয়নি। তাই তাকে অযথা দোষারোপ করা থেকে বিরত থাকুন (SC says- stop blaming Rhea Chakraborty)। পরিষ্কারভাবে এই কথা বললো হাইকোর্ট। সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর চক্রবর্তীর নাম সাধারণ মানুষের সামনে আসে। এরপর বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম আর সোশ্যাল মিডিয়াতে এই মডেল এবং অভিনেত্রীর নাম প্রচুর পরিমাণে দেখানো হয়। ফলে সবাই এই বাঙালি অভিনেত্রী রিয়া কে চিনতে পারে।

ফলে স্বাভাবিকভাবেই তাকে ঘিরে বিতরকের জন্ম নেয়। কেন তিনি মুখ দেখাচ্ছেন না? রিয়া কোথায়? এরকম বিভিন্ন প্রকারের হেড লাইন দিয়ে বড় বড় টিভি চ্যানেল এবং সংবাদপত্রে খবর দেখানো হয়।

এর কিছুকাল পর সুশান্ত এর মৃত্যুতে তাকে দোষারোপ করা শুরু হয়। এমনও বলা হয় যে তিনি পরোক্ষভাবে আত্মহত্যায় মদত দিয়েছেন সুশান্ত কে। অধিকন্তু বলা হয় যে মৃত্যুর পর সুশান্ত-এর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে 15 কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। এই প্রকারে তার দিকে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ আনা হচ্ছে। এছারাও সোশ্যাল মিডিয়ায় রিয়া কে দোষী সাব্যস্ত করা হচ্ছে।

তাকে বিভিন্ন প্রকার খারাপ বাক্যে সম্বোধন করা হচ্ছে। তার দিকে হত্যাকারী, গোল্ড ডিগার, উইচ বা ডাইনি ইত্যাদি নোংরা নোংরা কথা ছুঁড়ে দেওয়া হচ্ছে। কিছু কিছু লোক আবার চরম সীমায় পৌঁছে গিয়েছেন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ রিয়া কে ধর্ষণ করার হুমকি দিচ্ছেন। আবার কারো অভিমত রিয়া যেন আত্মহত্যা করে।

এবার এই ব্যাপারটা নিয়ে মুখ খুললেন ভারতে বিবিসির সংবাদদাতা দিব্যা আরিয়া(Divya Arya BBC India)। তার মতে,” সুশান্ত সিং এর পরিবার থেকে রিয়া চক্রবর্তীর বিপক্ষে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি দোষী কিনা সে ব্যাপারে আমি কোনো কথা বলছি না। মামলার ব্যাপারে সমস্ত বিচার করবে কোর্ট। কিন্তু বিচারের আরম্ভই হয়নি। তদন্ত আস্তে আস্তে শুরু করা হচ্ছে। তবে এরই মধ্যে রিয়াকে রীতিমত দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। এছাড়াও কিছু কিছু গণমাধ্যমে একই কথা বলছে।”

তার কথা অনুযায়ী, এই সমস্ত কথা বার্তা থেকে ভারতের বিভিন্ন মানুষের যে নারীদের প্রতি স্বাভাবিক বিদ্বেষ(Hatred Against Women In India) রয়েছে তা পরিষ্কারভাবে বোঝা যাচ্ছে। অপরপক্ষে, কেউ মানসিক হতাশায় ভেঙে পড়লে যে কি ঘটাতে পারে তা নিয়ে যে তাদের জ্ঞানের স্বল্পতা রয়েছে তাও পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে।

তার কথায়,” এখন পুরোপুরি বলিউডের নাটক(Bollywood Drama) চলছে। আর এই নাটকের উপর অনেকটা নির্ভরশীল ভারতের গণমাধ্যম(Indian Media)।
শুধুমাত্র জনসাধারনই এই সমস্ত খবর উগরে দিচ্ছেন তা নয়। এখানে সুশান্ত সিং এর ফ্যামিলি, বন্ধুবান্ধব এবং কয়েকজন রাজনৈতিক নেতারাও রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের কথা বলছেন।”

প্রসঙ্গত, সুশান্ত মারা যাবার দেড় মাস পর তার পিতা পুলিশের কাছে রিয়া, তার পরিবার এবং আরো কিছু লোকের নামে থানায় মামলা দায়ের করেন। তিনি দুটো অভিযোগ আনেন। প্রথমত, তারাই পরোক্ষভাবে সুশান্তের আত্মহত্যার জন্য দায়ী। দ্বিতীয়ত, সুশান্ত মারা যাবার পর তিনি ব্যাংকের টাকা গায়েব করেছেন।

এছাড়াও এই তদন্তের ব্যাপারে বিহার এবং মুম্বাইয়ের পুলিশ এর মধ্যে টানাপোড়েনের সূত্রপাত ঘটে। পরবর্তীকালে বিহার সরকার কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো বা সিবিআই এর কাছে এই মামলার তদন্তভার গ্রহণ করার জন্য আবেদন করে।