দেহ ব্যবসা করতে বাধ্য হচ্ছেন পশ্চিমের শিক্ষার্থীরা, জেনে নিন আসল কারণ

মহামারীর পরে সবথেকে বেশি যার ওপরে সবথেকে বেশি প্রভাব পড়েছে তাহল শিক্ষা ব্যবস্থা। সবকিছু স্বাভাবিক হলেও এখনো পর্যন্ত স্থগিত রয়েছে সমস্ত স্কুল এবং কলেজ। এদিকে আরো একবার মহামারীর প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার ফলে লকডাউন এর দিকে এগোচ্ছে বিশ্ব। ফলে আরো একবার অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে কোটি কোটি মানুষের জীবনযাত্রা। (World News: Girl students in western colleges do this due to corona and lockdown)

সম্প্রতি এগুলির মধ্যে ভয়াবহ খবর পাওয়া গেল বৃটেনের ট্যাবলয়েড পত্রিকা ডেইলি মেইলের তরফ থেকে। পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলেছেন যে, ইউরোপ এবং আমেরিকার মতো উন্নত দেশে থাকা সমস্ত নারী শিক্ষার্থীরা আসাস দেহ ব্যবসার দিকে ঝুঁকছেন। তবে এর প্রধান কারণ হলো তারা পড়াশুনার খরচ চালাতে পারছে না। সহজে পয়সা উপার্জন করার আর কোন রাস্তা তারা খুঁজে পাচ্ছেন না তাই অবশেষে দেহ ব্যবসাকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন তারা। (Deho bebsa korte baddho hocchen paschimer sikkharthira meye)

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র কানাডা শহর ইউরোপের বড় বড় দেশে অধিকাংশ শিক্ষার্থী হোটেল এবং রেস্টুরেন্ট সহ দোকানে কাজ করে নিজেদের পড়াশোনার খরচ চালায়। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে সমস্ত হোটেল এবং রিসোর্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাদের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজে নারী শিক্ষার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ফী কোনোভাবেই পরিশোধ করতে পারছেন না। তাই একপ্রকার বাধ্য হয়ে তারা দেহ ব্যবসার দিকে আগ্রহী হয়ে পড়ছেন। দেহপসারিনীদের ইউনিয়ন ইংলিশ কালেক্টিভ অফ প্রস্টিটিউট হেল্পলাইনে যোগাযোগ করে তারা নিজেদের নাম নথিভুক্ত করেছেন।

এই খবরটি প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমের মাধ্যম দিয়ে এই সমস্ত শিক্ষার্থীদের সহায়তার আহ্বান জানিয়েছেন দেহপসারিনীদের ইউনিয়ন ইংলিশ কালেক্টিভ অফ প্রস্টিটিউট। তাদের মতে, এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা বর্তমান সময়ে এরইমধ্যে বেড়ে গেছে এক তৃতীয়াংশ। এটি যেন ভবিষ্যতে আর না বৃদ্ধি পায় তার জন্য, সকলকে সাহায্যের আহ্বান জানিয়েছেন এই প্রতিষ্ঠান।

girl students in western colleges do this due to corona and lockdown
দেহ ব্যবসা করতে বাধ্য হচ্ছেন পশ্চিমের শিক্ষার্থীরা, জেনে নিন আসল কারণ