সিন্ডিকেট কথোপকথনেই শুরু রাজনৈতিক তরজা, শেষ সময়ে ভাইরাল অডিও ক্লিপ

সামনেই রয়েছে নির্বাচন। তাকে ঘিরেই এখন সমস্ত রাজনৈতিক নেতাদের উত্তেজনা তুঙ্গে। যেকোনো সময় যেকোনো বেফাঁস মন্তব্য করে বসলে দিতে হবে তার খেসারত, তাই এখন সকলেই খুবই সাবধানে কথা বলছেন। তবে এর মধ্যেই হঠাৎ করে অডিও ক্লিপ ঘিরে তৈরি হয়েছে তুমুল অশান্তি। দুই সিন্ডিকেটের মধ্যে কথাবাত্রা শুনতে পাওয়া গেছে অডিও ক্লিপে। (Viral Audio Clip: Syndicate conversation revealed during West Bengal Assembly Election 2021)

তার আগে জেনে নেওয়া যাক সিন্ডিকেট কি? এদের টাকা-পয়সা নিয়ে কি এমন কথা হয়েছে? এমনকি রয়েছে জানিয়ে উত্তেজনা চরমে পৌঁছে গেছে? এই অডিও ক্লিপিং সে উঠে এসেছে বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতাদের নাম, তার মধ্যে রয়েছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়,সব্যসাচী দত্তের নাম।

ভাইরাল হওয়া ক্লিপে শুধুমাত্র কয়লা নয়, আরো অনেক বিষয় উঠে এসেছে এর মাধ্যমে।
প্রথম জন, সিন্ডিকেট নিয়ে অনেক কিছু শুনে এসেছি। খুব জানতে ইচ্ছা করছে এটা কি।
দ্বিতীয়জন, সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বাংলায় পেট ভরা হয়।
প্রথম জন, কিন্তু সিন্ডিকেট আসলে কি।
দ্বিতীয়জন, বিভিন্ন জায়গায় যে বড় বড় নির্মাণকার্য হয়, সেখানে রাজনৈতিকভাবে সিন্ডিকেট তৈরি করা হয় যাদের মাধ্যমে আমাদের কিনতে হয় বালি-পাথর অথবা ইট। এই ভাবেই সিন্ডিকেট কাজকর্ম করে।

প্রথম জন, তা এই সিন্ডিকেটের টাকা কোথায় যায়?
দ্বিতীয়জন, দেখুন ধরুন কোন জিনিসের দাম 100 টাকা, সেটা সিন্ডিকেটকে দিতে হয় একশো কুড়ি টাকা। এছাড়াও নিম্নমানের জিনিস দেওয়া থেকে শুরু করে মাপজোকের কারচুপি সবই করতে পারে সিন্ডিকেট। রাজনৈতিক নেতারা এর থেকে ভাগ পায় বলে কেউ কোন কথা বলতে পারে না।

এ সিন্ডিকেটের নেতা হলো সব্যসাচী দত্ত যিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। এরা এতটাই শয়তান যে যেকোনো সময় মানুষের ঘরে আগুন দিয়ে দিতে পারে।
প্রথম জন, সত্যি কি এরা এমন করেন।
দ্বিতীয়জন, অবশ্যই। যাদের বিরুদ্ধে কখনো কোনো তদন্ত হয় না। পুলিশ ও আসবেনা। কথা না শুনলে কারখানা লুঠ করে নেবে।

প্রথম জন, আচ্ছা এদের কি লোক বল আছে?
দ্বিতীয়জন, অবশ্যই। এরা সব কিছু করতে পারে। এরা ঘরে জালনোট রাখে, গাজা রাখে, এমন আরও অনেক কিছু। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় শেষ পাঁচ বছর এত কেস দিয়েছে বিরোধীদের যে পুলিশ হাপিয়ে গেছে।

এই কথোপকথনের বিষয়টিকে কেন্দ্র করে সিবিআই কয়লা কাণ্ডের তদন্তে নেমেছে। ভাইরাল হওয়া অডিও ক্লিপ ইতিমধ্যেই জোগাড় হয়ে গেছে। তার মধ্যে কাদের কণ্ঠস্বর শুনতে পাওয়া যাচ্ছে তা খতিয়ে দেখা হবে।

ইতিমধ্যে বিজেপি দাবি করেছেন যে, অডিও ক্লিপে ব্যবসায়ী গণেশ বাগারিয়া কণ্ঠস্বর শোনা যাচ্ছে। কয়লা মামলায় গণেশ বাগারিয়া গোপন জবানবন্দি দিয়েছেন একবার। তার সঙ্গে এই কণ্ঠস্বর মিলিয়ে দেখা হবে। দ্বিতীয় কণ্ঠস্বর টি কার সেটাও খতিয়ে দেখা হবে। পাতারকান্দি মূল অভিযুক্ত অনুপ মাঝি কে আরো একবার জিজ্ঞাসাবাদ করবে সিবিআই।

অনুপ মাঝি ওরফে লালা যাবতীয় তথ্য গোপন করে তদন্ত অসহযোগিতা করছেন বলে জানা যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই কয়লা পাচার কাণ্ডে বাঁকুড়া জেলার আইসি অশোক মিশ্রা কে গ্রেফতার করে ইডি। এছাড়াও পুরুলিয়ার প্রাক্তন পুলিশ সুপারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। সঙ্গে পুরুলিয়া রঘুনাথপুর এর এসডিপিও দুর্বার বন্দ্যোপাধ্যায় কে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

syndicate conversation revealed during west bengal assembly election
সিন্ডিকেট কথোপকথনেই শুরু রাজনৈতিক তরজা, শেষ সময়ে ভাইরাল অডিও ক্লিপ