বিয়ের প্রপোজাল স্বীকার করার পরপরই পা পিছলে পাহাড় থেকে পড়লেন প্রেমিকা

পাহাড়ের মত মনোরম জায়গা আর হয় না। খোলা আকাশের নিচে, চূড়ায় দাঁড়িয়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করা স্বর্গসম সুখ। শুধু উপভোগ করাই নয় যখন আসে প্রেমের কথা সেখানে পাহাড়ের মত রোমান্টিক জায়গা আর দুটো হয়না হয়তো। পাহাড়ের কোলে দাঁড়িয়ে প্রেম নিবেদন করতে কে না চায়! কিন্তু বিপদের কথাটা মাথায় রাখা উচিত। পাহাড়ের কোলে উচ্ছ্বাস আনন্দ প্রকাশ করতে গিয়ে যাতে বিপদে না পড়তে হয়। কিন্তু এমনটিই ঘটলো এইবার। (Viral News : The girlfriend fell from a 650 m high mountain after saying yes to marriage proposal)

জানা গেছে প্রেমিক যুগল অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা। প্রেমিকের সুপ্ত বাসনা প্রেমিকাকে পাহাড়ের কোলে প্রেম নিবেদন করবে। সেইমতো যখন দুজনেই পাহাড়ের নির্জন এক কোণায় দাঁড়িয়ে মনোরম পরিবেশ উপভোগ করতে ব্যস্ত সেই সময় প্রেমিকার প্রতি প্রেম নিবেদন করেন প্রেমিক। এমন একটি রোমান্টিক জায়গায় প্রেমের প্রস্তাব পেয়ে আনন্দে ভরে ওঠে প্রেমিকার মন। তৎক্ষণাৎ চিৎকার করে সে সহমত জানিয়ে হ্যাঁ বলে ওঠে, আর সেই সময়ে ঘটে ভয়ানক বিপদ।

তারা যে কোণায় দাঁড়িয়ে ছিল সেটি অত্যন্ত বিপদজনক। সামান্য একটু অসাবধানতার ফলে পিছলে যায় প্রেমিকার পা এবং তৎক্ষনাত সে ৬৫০ ফুট নিচে পড়ে যায়। নিমেষের মধ্যে দিশেহারা হয়ে প্রেমিকাকে বাঁচাতে নিজেও লাফ দেয় প্রেমিক।

যদিও ভাগ্য তাদের সাথে ছিল বলে বেঁচে যায় দুজনেই। ৩২ বছর বয়সী ওই প্রেমিকা গিয়ে পড়ে বরফের চাদরে ফলে জীবন বেঁচে যায় তার। ঘটনাটি ঘটে কারিনাথিয়ার ফালকার্ট পর্বতে। প্রেমিক ঝাঁপ মারলেও ৫০ ফুট উঁচুতে আটকে যায় সে। পুলিশ জানিয়েছেন দুজনেই খুব ভাগ্যক্রমে জীবনে বেঁচে যান। (Carinthia Mountain)

পর্বতের যদি তুষারপাত না হতো তাহলে দুজনেরই মৃত্যু অবধারিত ছিল। পরবর্তীকালে হেলিকপ্টার এর মাধ্যমে প্রেমিককে উদ্ধার করা হয়। মৃত্যুর আশংকা না থাকলেও হাত-পা ভেঙে যেতে পারে বলে জানা গেছে।

The girlfriend fell from a 650 m high mountain after saying yes to marriage proposal
বিয়ের প্রপোজাল স্বীকার করার পরপরই পা পিছলে পাহাড় থেকে পড়লেন প্রেমিকা