কেন ভেঙে গেল টিভি তারকা অপূর্ব ও নাজিয়ার সংসার?

এই মুহূর্তে করোনার ভয়াবহ থাবায় সমস্ত কিছু নিস্তব্ধ হয়ে গেছে। আর লকডাউন চলছে। ঠিক এই পরিস্থিতিতেই ভেঙে গেল ছোটপর্দার বিখ্যাত অভিনেতা অপূর্বর সংসার ।অপূর্বর পুরো নাম জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। আর তার প্রাক্তন স্ত্রীর পুরো নাম নাজিয়া হাসান অদিতি। তার সদ্য সাবেক স্ত্রী অদিতি সবকিছু ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি ফেসবুকে বলেছেন, “স্টপ কলিং মি ভাবি এভরিওয়ান।”

জানা গেছে গত কয়েক মাস যাবত সম্পর্ক ঘিরে অশান্তি চলছিল অপূর্ব-নাজিয়ার মধ্যে। তারা নাকি আলাদা ভাবে বসবাস করছিলেন। অনেকেই বলাবলি করছিলেন যে তাদের সুর কেটে গেল বলে। আর রোববার নাজিয়ার সেই পোস্টটি থেকে সম্পূর্ণরূপে নিশ্চিত হয়ে গেল সবাই। এমনকি নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে ডিভোর্স শব্দটিও লিখে দিয়েছেন তিনি।

রবিবার রাত্রে সোশ্যাল মিডিয়ায় অপূর্ব লেখেন, আমাদের দুজনের যাত্রাপথটি দুর্দান্ত ছিল। আমরা নয় বছর ধরে একসঙ্গে বসবাস করেছি। এই সময় একে অপরের সমস্ত কিছু শেয়ার করে নিয়েছি। বিচ্ছেদ আমাকে অবাক করে দিয়েছে। যদিও যদিও আমরা নিজেদের জন্য চেয়েছিলাম এটা। তবে দুঃখের কথা হলো এই যে, আজ আমাদের জীবন এখানে এনে দাঁড় করিয়েছে। এত বছর যাবত আমরা একই সঙ্গে বসবাস করেছি। অদিতি সব সময় এই সময়গুলোতে আমার প্রকৃত অংশীদার এবং সত্যি কারের শুভাকাঙ্ক্ষী ছিল। আমার অনেক সাফল্যের পেছনে মূলত আমার স্ত্রী সহায়তা করেছে। আমার স্ত্রী সত্যি একজন আশ্চর্য মানুষ। একজন আত্মবিশ্বাসী উদ্যোক্তা এবং সর্বোপরি অত্যন্ত দয়ালু এবং মানবিক ব্যক্তি।

সন্তান সম্পর্কেও অপূর্ব মূল্যবান কথা বলেন। তিনি বলেন যে, তার ক্যারিয়ারে অনেক কিছুই অর্জন করেছেন তিনি। কিন্তু তিনি মনে করেন তার সবথেকে বড় পাওয়া হলো তাদের ছেলে আয়াশ। তিনি পিতৃত্বের এই দুর্দান্ত উপহারের জন্য নাজিয়াকে অনেক অনেক ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন যে এই উপহারের জন্য আমি নাজিয়াকে পর্যাপ্ত পরিমাণে ধন্যবাদ জানাতে পারব না। সে আমার সন্তানের অনুকরণীয় মা হয়েছেন এবং আমাদের ছেলের প্রতি পালনের অংশীদার হিসেবে আমাদের যাত্রা এখন থেকেও অব্যাহত থাকবে।

তিনি তার ভক্তদের উদ্দেশ্যে বলেন, বিয়ের মতো বিষয়টি ভেঙে যাওয়ার জন্য অনেকের মনে অনেক প্রশ্ন জাগছে। সবাইকে আমার অনুরোধ আপনারা আমাদের জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন, আমি এবং নাজিয়া যেন এই শক্ত সময় গুলো সহজেই পার করতে পারি। দয়া করে আমাদের তিনজনকেই দোয়া করবেন। আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ এবং আল্লাহ সকলকে মঙ্গল করুন।

এরইসাথে তিনি তাদের ব্যক্তিগত জীবনকে সম্মান প্রদর্শন করার আহ্বান জানিয়েছেন। একটি স্ট্যাটাসে বলেন, ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে গসিপ করা এবং রসালো গল্প বানিয়ে তাদের কষ্ট বাড়িয়ে দেওয়ার মতো জঘন্য কাজ থেকে সবাই বিরত থাকবেন। অত্যন্ত সম্মানের সঙ্গে জানাচ্ছি যে আমি এবং আমার স্ত্রী অদিতি অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ সমাধানের মধ্য দিয়ে আমাদের সম্পর্কের শেষ টেনেছি আর কেউ যদি ভুল সংবাদ প্রচার করে তাহলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিশেষ করে আমাদের সম্পর্কের মাঝে তৃতীয় কোন ব্যক্তিকে জড়িয়ে যদি কোন ভুল সংবাদ প্রকাশ করা হয় তাহলে আমি ডিজিটাল আইনের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

“অলরেডি কয়েকটা সংবাদের লিংক আমি সংগ্রহ করেছি। আমি আবারো বলতে চাই যে আমি অদিতিকে এখনো শ্রদ্ধা করি এবং আজীবন করব। সুতরাং কোনভাবেই অদিতিকে অসম্মান করে তার পাশে অন্য কোনো ব্যক্তির নাম আমি বরদাস্ত করবো না। কেউ আশাকরি ভুলে যাবেন না যে অদিতি আমার আইনগত স্ত্রী না হলেও আমার সন্তানের মা।”

হাই বন্ধুরা, প্রতিদিন বাংলাদেশের খবর পাওয়ার জন্য bangla.365reporter বুকমার্ক করে রাখুন। আর ফেইসবুক, টুইটার এবং পিন্টারেস্টে আমাদের সঙ্গে কানেক্ট করতে পারেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.