এই পদ্ধতিতে ঠাকুর ঘর সাজালে ভগবানের আশীর্বাদ অবশ্যই আপনার ওপর চিরকাল থাকবে

দিনের শেষে কখনো না কখনো আমাদের ভগবান এর শরণাপন্ন হতে হয়। ভগবানের আলোচনা করলে আমাদের মনে তৈরি হয় অপার শান্তি। কোন কোন মানুষের কোন কোন দেবতার প্রতি আলাদা টান থাকে। আমরা প্রত্যেকেই আমাদের ঠাকুরঘরে সুন্দর করে আমাদের ঠাকুর কে সাজিয়ে রাখতে চাই। কিন্তু ঠাকুর ঘরের বেশ কিছু নিয়ম যদি না মানতে পারেন আপনি, তাহলে অদূর ভবিষ্যতে আপনার জীবনে নেমে আসতে পারে নেগেটিভিটি। (365 Reporter Bangle Lifestyle Tips and Mythology : Decorate your Thakur Ghar in this way and God will surely bless you )

বর্তমানে আমাদের প্রত্যেকেরই বাড়িতে কম জায়গা থাকার কারণে আলাদা করে ঠাকুর ঘর তৈরি করা যায় না। আলাদা করে যদি ঠাকুর ঘর করা যায় তাহলে, সেটি করতে হবে বাড়ির উত্তর-পূর্ব কোণে। বাড়িতে আলাদা করে ঠাকুর ঘর করলে বাড়িতে ঈশ্বরের কৃপা বর্ষণ হয়। কিন্তু সব ক্ষেত্রে তা সম্ভব হয় না।তাই বাড়ির উত্তর-পূর্বদিকে ঠাকুর রাখার জায়গা করতে হবে আপনাকে। উত্তর-পূর্ব দিকে মুখ করে ঈশ্বরের আরাধনা করা উচিত বলে মনে করা হয়।

বাড়িতে যেখানে আপনার ঈশ্বর থাকে, সেখানে সুন্দর করে আলপনা এঁকে নিন। বাজার চলতি আল্পনা না কিনে এনে চেষ্টা করুন নিজের হাতে আলপনা আঁকতে।এর ফলে পুজো করার সময় একটি মঙ্গলময় প্রভাব সকলের মধ্যে ছড়িয়ে যায়।এছাড়াও লোকো শিল্পীদের আঁকা পট চিত্র দিয়েও ঠাকুর ঘর সাজিয়ে রাখতে পারেন।

ঠাকুর ঘরের সিলিং এর একটি ঘন্টা ঝুলিয়ে ঠাকুরের আসনের দুপাশে নকশা করা পিতলের প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখতে পারেন আপনি। এতে যে কোন মন্দিরের মতো অনুভূতি আসবে আপনার বাড়িতে। এমনকি কোন বৈদ্যুতিক আলো না জ্বালিয়ে যদি মাটির প্রদীপ জ্বালানো যায়, তাহলে একটি ঈশ্বরপ্রদত্ত আবহাওয়া তৈরি হয়ে যাবে আপনার চারপাশে।

Decorate your Thakur Ghar in this way and God will surely bless you
এই পদ্ধতিতে ঠাকুর ঘর সাজালে ভগবানের আশীর্বাদ অবশ্যই আপনার ওপর চিরকাল থাকবে