নিউটাউনের হোটেলে নৃশংস খুন, পাওয়া গেল একটি চিরকুট

নিউটাউনের ডিডি ব্লকের একটি হোটেল থেকে পাওয়া গিয়েছিল এক মহিলার দেহ, রক্তে ভেসে যাচ্ছিল সারা জায়গা। বিছানায় পড়ে ছিল সেই মহিলার দেহ এবং দেহটি ছিল চাদরে ঢাকা। পাশে পড়েছিল মদের বোতলের ভাঙা টুকরো, যা দিয়ে সেই মহিলাকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। (Murder News, Kolkata : A female is brutally murdered in a hotel in New Town, DD Block)

খবর সূত্রে জানা গিয়েছিল যে, গতকাল নিউ টাউন এর এই হোটেলটিকে এক যুবক একটি মহিলাকে নিয়ে এসেছিল এবং তারপরেই সেই হোটেলের ঘরে মহিলাকে খুন করে পালিয়ে যায় সেই যুবক।

হোটেল কর্তৃপক্ষ জানায় যে, সেই যুবক এবং সেই মহিলা যখন এই হোটেলের ভাড়া নিতে আসে তখন যা তাদের আইডি প্রুফ দেখেই ভাড়া দেওয়া হয়েছিল, সন্ধ্যে সাতটার দিকে তারা এই হোটেলটি ছেড়ে দেবে বলে জানিয়েছিল, কিন্তু যখন সন্ধ্যে সাতটা বেজে যায় তখন হোটেল কর্তৃপক্ষের কর্মচারীরা তাদের গিয়ে ডাকলে কোন সাড়া শব্দ পাওয়া যায় না। তখন তারা সন্দেহ করে নকল চাবি দিয়ে সেই ঘর খুলে তার পরেই তারা দেখতে পায় সেই মহিলার রক্তাক্ত দেহ।

হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ যখন এখানেই ধরা পড়ে যে সেই ব্যক্তি বিকেল চারটের সময় সেখান থেকে পালিয়ে গিয়েছিল। জানা যায় ওই মৃত মহিলা এবং ওই যুবক দুজনেই মেদিনীপুরের লোক, এবং মহিলা বিবাহিত সেটাই এখনো পর্যন্ত জানা গেছে।

সন্দেহ করা হচ্ছে যে শুধুমাত্র খুনের জন্য মেদিনীপুর থেকে কলকাতায় এসেছিল সেই যুবক। ওই হোটেলের ঘর তদন্ত করার পর সেখান থেকে একটি চিরকুট পাওয়া যায় যেখানে নাটকীয় পদ্ধতিতে লেখা ছিল যে “আমি তোকে মারতে চাই নি, কিন্তু তোকে মারতে আমি বাধ্য হলাম”। এই চিরকুটটা পাওয়ার পর রহস্য ভালোমতো দানা বেঁধেছে। সেই যুবকের নাম হল অমিত ঘোষ। এখন আপাতত সেই অভিযুক্তকে খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।

A female is brutally murdered in a hotel in New Town
নিউটাউনের হোটেলে নৃশংস খুন, পাওয়া গেল একটি চিরকুট (প্রতীকী ফটো)