মুখাগ্নির সময় বদলে গেছে মৃতদেহ, হাসপাতালের চরম গাফিলতির শিকার 2 পরিবার

আরো একবার মৃতদেহ বদল এর অভিযোগ উঠল চাঞ্চল্য। দিন ১৫ আগে দুর্গাপুরের বাসিন্দা ৮০ বছরের পরে সামন্তকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। ব্রেন টিউমার থাকার কারণে তাঁকে ভর্তি করানো হয়েছিল বেসরকারি হাসপাতালে। বেশ কিছুদিন অসুস্থ থাকার ফলে অবশেষে গতকাল তার মৃত্যু হয়। (A private hospital in Durgapur shows negligence as dead body wrongly given)

বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী তাকে প্যাকেট বন্দি করে তুলে দেওয়া হয় তার আত্মীয়দের কাছে। খুব স্বাভাবিক ভাবেই তখন প্যাকেট থেকে কেউ আর দেহ বার করে দেখতে যায়নি। পরিবারের সকলে সিদ্ধান্ত নেয় যে, তারা দেহ নিয়ে চলে যাবেন মোগরা ত্রিবেণী শ্মশানে। সেখানে গিয়ে সমস্ত নিয়ম পালন করার পর যখন মৃতদেহ বের করে আনা হয় তখন, সকলের চোখ চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যায়। (dead body of 80 years old Paresh Samanta is misplaced by someone else)

প্যাকেটের মধ্যে যে মৃতদেহটি তারা নিয়ে আসেন সৎকার করার জন্য, সেটি আদতে তাদের পরিবারের মৃতদেহ নয়। সেটি অন্য কারোর।কাকতালীয়ভাবে ঠিক সেইসময় হাসপাতাল থেকে ফোন আসে। পরিবারের সকলের থেকে জানতে চাওয়া হয় যে, দেহটি দাহ করা হয়েছে কিনা। দেহটি দাহ করা হয়নি শুনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থেকে জানানো হয় যে, তাদের যে দেহটি তুলে দেওয়া হয়েছে, সেটি আসলে ধানবাদ এর বাসিন্দা একজন ব্যক্তির।

বিষয়টি বিস্তারিত জানার পর ধানবাদ এর সেই মৃত ব্যক্তির পরিবারের লোক জনেরা উপস্থিত হন শ্মশানে। শ্মশানে অদল বদল হয় মৃত ব্যক্তির দেহ। দেহ বিনিময়ের পর সেখানে শেষকৃত্য সম্পন্ন করে দুই পরিবার। তবে কীভাবে এই রকম ঘটনা ঘটে গেল, তা নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে চরমে। হাসপাতালে এইরকম বেহিসেবি কাজের জন্য দুই পরিবারের মানুষজন অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছে হাসপাতালের দিকে।

a private hospital in durgapur shows negligence as dead body wrongly given
মুখাগ্নির সময় বদলে গেছে মৃতদেহ, হাসপাতালের চরম গাফিলতির শিকার 2 পরিবার (প্রতীকী ফটো)