অনলাইনে কেনাকাটা করলে এখনই সাবধান হয়ে যান এই সমস্ত জিনিস থেকে – Online Shopping Fraud Case

আমাদের জীবনের বেশির ভাগটাই এখন জুড়ে রয়েছে ইন্টারনেট। কিছু বছর আগেও যে ইন্টারনেটের কু প্রভাব নিয়ে আলোচনা করতাম আমরা, ইন্টারনেট এখন আমাদের জীবনের অন্যতম অঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পড়াশোনা থেকে শপিং সবকিছুই আমরা করি এই ইন্টারনেটের মাধ্যমে। করোনার প্রাক্কালে শুধু এই ইন্টারনেটের জন্য বহু মানুষ হতাশার শিকার হয় নি। ইন্টারনেটে বেশি সময় আমরা দেখি জামা কাপড় থেকে জুতা সবকিছু। অনলাইনে গুগোল পে অথবা পেটিএম এর মাধ্যমে আমরা টাকা দিয়ে যেমন খুশি তেমন জামা-কাপড় কিনে নিন। তবে এই সমস্ত জামাকাপড় এর কেনাবেচা তেও থাকে কিছু নেতিবাচক দিক। (Lifestyle Tips in Bengali : Be careful if you perform online shopping)

গুণমান: ছবিটা দারুন দেখালেও যখন সেই জিনিসটি আমাদের হাতে আসে, তখন দেখা যায় সেটি পাতে দেবার যোগ্য নয়। অগত্যা ফেরত দিতে গিয়ে আরো ঝঞ্ঝাট পোহাতে হয় আমাদের। (Online e kena kata korle sabdhan hoe jaan ekhoni ei sob jinis theke)

ডিজিটাল ট্রানজেকশন: নগদ দেওয়া-নেওয়ার থেকে এখন ডিজিটাল ভাবেই টাকা আদান প্রদানের উপর বেশি ভরসা করেন অনেকে। তবে নেটওয়ার্ক অথবা অন্য কোনো কারণে অনেক সময় টাকা লেনদেন ব্যর্থ হয়। অগত্যা আমাদের অপেক্ষা করতে হবে আরো দুদিন। সেই নিয়ে আরো কিছুদিন আমাদের ঝামেলা পোহাতে হয়।

ওয়েবসাইটের নীতি: অনেক সময় ওয়েবসাইটগুলোতে জিনিস কেনাবেচার কিছু নিয়ম নিচে লেখা থাকে যা আমাদের চোখ এড়িয়ে যায়। চোখ এড়িয়ে গেলেই পরে আমাদের বিপদের সম্মুখীন হতে হয়।

দাম নিয়ে লুকোচুরি: অনেক সময় কোন জিনিস ভালো লাগলে এবং সেটি সাধ্যের মধ্যে মনে হলে যখনই অর্ডার করতে যাবেন চূড়ান্ত সময় দেখবেন ডেলিভারি চার্জ নিয়ে চলে গেছে আপনার সাধ্যের বাইরে। বাধ্য হয়ে আপনাকে আবার পিছিয়ে আসতে হয় সেই জিনিসটি কেনার সিদ্ধান্ত থেকে।

ডেলিভারি সমস্যা: কোন নির্দিষ্ট দিনে যদি আপনি কোন জামা অথবা গিফট কিনতে চান, সেটি যদি সময়মতো আপনার কাছে না এসে পড়ে, তখন সেই জিনিসটি কেনার অর্থ একেবারেই নিরর্থক হয়ে যায়। দেরি করে ডেলিভারি আসার দায় আপনি কাউকে দিতে পারবেন না। সে আরেক ঝামেলা।

Be careful if you perform online shopping
অনলাইনে কেনাকাটা করলে এখনই সাবধান হয়ে যান এই সমস্ত জিনিস থেকে – Online Shopping Fraud Case