করোনা হাসপাতালে উদোম মদ্যপান ! তদন্ত করতে বললেন মুখ্যমন্ত্রী

করোনা মহামারীর মুহূর্তে লোকজন ঘরবন্দি। তবে এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিও দেখে লোকজনের মনে কিছুটা আনন্দের সঞ্চার হচ্ছে। আর এই ভিডিওগুলো কখনো হয় হাস্য রসাত্মক, কখনো মর্মে গিয়ে আঘাত করে ইত্যাদি। তবে এবার এমন একটা ভিডিও ভাইরাল হলো যা প্রশাসনের অসচেতনতার প্রমাণ দেয়।

কিছুদিন আগে শান্টু গুপ্ত নামে ঝাড়খণ্ডের শিব কলোনি কাতরাসের (Santu Gupta, Jharkhand Shiv Colony Katras) লোক এক বয়স্ক দম্পতিকে অপহরণের চেষ্টা করে। পরবর্তীকালে তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। এরপর তার করোনা পরীক্ষা করা হয়। টেস্টে তার রিপোর্ট পজেটিভ এসেছিল। ফলে প্রশাসনের তরফ থেকে তাঁকে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কিন্তু অসুস্থ অবস্থাতেও শিক্ষা হয়নি শান্টুর। এমনকি প্রশাসনের এই মানবিক প্রচেষ্টা কে সে খারাপ ভাবে ব্যবহার করেছে। সে হাসপাতালেই আনন্দ-ফুর্তির পরিকল্পনা করে ফেলে। তাকে কোভিড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছিল। তা হলেও 30 বছর বয়সী এই আসামি সেখানেই মদ খাওয়া শুরু করে দেন। আবার নির্লজ্জের মতো, নিজের সুকীর্তির ভিডিও নিজেই মোবাইলে বন্দী করেন। চলুন আমরা জেনে নেই সেই ভিডিওটি সম্পর্কে বিস্তারিত।

ভিডিওটি শুরু হচ্ছে একহাতে হাতকড়া পরানো শান্টু গুপ্ত কে দেখে। এরপর রকমারি খাবার ভর্তি একটি টেবিল দেখা গেলো। তবে সেগুলো দোকান থেকে কেনা হয়েছে তা স্পষ্ট বোঝা গেল। কারণ খাবারের প্যাকেট এই তার প্রমান। অপরদিকে তার হাতকড়া পরানো হাতেই মদের বোতল রয়েছে। একেতে আসামি, তারপরে কোভিড পজেটিভ- তা সত্ত্বেও হাসপাতালেই খাবারের আয়োজন করেছে সে।

স্বাভাবিকভাবেই এই ভিডিওটি সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। আর প্রশাসনের নাকের ডগা দিয়ে এরকম একটা কর্মকাণ্ড সে কিভাবে করলো তা ভাবিয়ে তুলছে আমাদের। ফলে প্রশাসন এবং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সচেতনতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। সেই মুহূর্তে সেখানে কোন ডাক্তার বার্নার্স কেন ছিলেন না তা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। এর আগেও ধানবাদের ভারত কুকিং কোল লিমিটেড হাসপাতালের (Bharat Coking Coal Limited, BCCL Hospital, Dhanbad) সিকিউরিটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। এই ঘটনা আবার সামনে আশায় পূর্বের অভিযোগকে আরো দৃঢ় করে তুলল।

এই মুহূর্তে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তবে ব্যাপারটা খতিয়ে দেখার চেষ্টা করা হচ্ছে। তাছাড়া ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন (Hemanta Soren, CM Of Jharkhand) এই ঘটনার খুব তাড়াতাড়ি তদন্ত করার পরামর্শ দিয়েছেন। উমাশংকর সিংহ, ধানবাদ এর ডেপুটি কমিশনার বললেন,” ঘটনাটির তদন্ত চালু হয়ে গিয়েছে। খুব শীঘ্রই রিপোর্ট মুখ্যমন্ত্রীর কাছে প্রেরণ করা হবে।”