এসি ছাড়াই অসহ্য গরমের হাত থেকে মুক্তি পাবেন কি করে?

খাতায়-কলমে এখন শরৎকাল চললেও অসহ্য গরমে ওষ্ঠাগত হয়ে উঠছে মানুষের প্রাণ। এই দাবদাহ পরিস্থিতি থেকে বাঁচার জন্য অনেকেই সঙ্গী করেন এসি বা এয়ার‌কুলারকে। কিন্তু অনেকের বাড়িতেই এসি বা এয়ারকুলারের ব্যবস্থা না থাকায় ফ্যানের উপর ভরসা করতে হয়। তবে এমন কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি বা টিপস রয়েছে যেগুলি আপনাকে এসি ছাড়াও ঘরে ঠাণ্ডা পরিবেশে দেবে। সেগুলি জেনে নিন এক ঝলকে (Lifestyle Tips : Domestic Methods to keep your room cool without AC)।

★ বাড়ির যে অংশ দিয়ে বেশি বাতাস চলাচল করে সেদিকের জানলা-দরজা খোলা রাখা উচিত। সূর্যাস্তের পরে ঠান্ডা বাতাস চলাচল করবে। (Keep your doors and windows of more wind passing side in your home open. Consequently, cold breeze will be flowing after sunset)

★ গরমের সময় দিনের বেলায় গরম বাতাস চলাচল করে। এই কারণে দুপুরের দিকে যাতে ঘরে গরম বাতাস প্রবেশ না করে সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে এবং দুপুরের সময় পেরিয়ে গেলে, বিকেল বেলায় সূর্যের আলো পড়তে শুরু করলে জানলা দরজা খুলে দিন। ঠাণ্ডা বাতাস ঘরে ঢুকলে ঘর ঠান্ডা হবে।

★ গরমে ঘর শীতল রাখতে বিছানার চাদর সাদা রঙের ব্যবহার করা দরকার এবং জানালার পর্দা ঘরের আসবাবপত্র সাদা রং এর আধিক্য থাকলে ঘর ঠান্ডা থাকে।

★ বাড়ির আশে পাশে ছায়ার জন্য গাছপালা লাগাতে পারেন।

★ ছায়া দিতে পারে এরকম গাছ বাড়ির পূর্ব পশ্চিম কোণে লাগানোর প্রয়োজন। সূর্যের আলো সরাসরি বাড়িতে ঢুকতে বাধা পাবে।

★ ঘরের চারপাশে ঘাস জাতীয় গাছ থাকলে ঘর ঠান্ডা থাকে।

★ গরমে প্রাকৃতিকভাবে ঘর শীতল রাখার উপায় হলো সাদা রং। ছাদ সাদা হলে বাড়ি ঠান্ডা থাকে। কারণ সাদা রং তাপ শোষণ করে না। প্রতিফলিত করে। এই কারণেই বাড়ির ছাদ ও টেরেস অঞ্চলগুলি সাদা রং করে নিতে পারেন।

★ ঘরেই এয়ারকুলার তৈরি করুন। এক বাটি আইসকিউব নিয়ে পাখার সোজাসুজি রাখুন। তারপর কিছুক্ষণ পর বরফ গলতে শুরু করলে সেই বাতাস ঠান্ডা জল শোষণ করবে। চারিদিকে ছড়িয়ে পড়বে এবং ঘরে ঠান্ডা বোধ হবে।